১০০% গ্যারান্টি, মাত্র ৫ টাকা খরচ করে ৭ দিনের মধ্যে নিখুঁত-মসৃন ও উজ্জ্বল ত্বক

১০০% গ্যারান্টি, মাত্র ৫ টাকা খরচ করে ৭ দিনের মধ্যে নিখুঁত-মসৃন ও উজ্জ্বল ত্বক – শরীরের মধ্যে মুখ মানুষের সবচেয়ে বেশি প্রিয়।

ছেলে হোক বা মেয়ে সবাই চায় নিজের মুখ সুন্দর রাখতে। তার জন্য ব্যাবহার করে নানা রকম প্রসাধনী দ্রব্য। সুন্দর ত্বক বা সুন্দর চেহারা চাইলে

সবার আগে নিজের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে ঘবে। যদি শরীর অসুস্থ হয় তাহলে তার ছাপ পড়বে আপনার ত্বকে। আর শরীর সুস্থ হলে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল। আপনার ত্বক থাকবে তরুন।সুন্দর থাকার জন্য অনেকেই অনেক কিছু করে থাকেন। কেউ ভালো ফল পান আবার

কেউ উলটো ফল পান। সুন্দর হতে গিয়ে হয়ে যায় কুৎসিত। কিছু ক্ষতিকারক পদার্থের কারণে ত্বকের অনেক ক্ষতি হয়ে যায়। ত্বক যদি সুস্থ না থাকে তাহলে আপনাকে কখনই সুন্দর দেখাবে না। আমাদের দেশে সাদা রং সবাই পেতে চায়। ফর্সা হতে চায়না এমন মানুষ আমাদের দেশে

খুঁজে পাওয়া মুশকিল। ফর্সা হওয়ার জন্য ফেয়ারনেস ক্রিম ব্যবহার করেন অনেকেই। কিন্তু লাভের লাভ কিছুই হয় না। চলুন আজ জেনে নেওয়া যাক কীভাবে নিখুঁত ফর্সা, উজ্জ্বল ও সুন্দর ত্বক পাবেন… আপনি বাজারের বিভিন্ন ফেয়ারনেস ক্রিম বা অন্য কোন প্রসাধনী দ্রব্য

ব্যবহার করে ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন ? কোন ফল পাননি ? তাহলে আজ থেকেই শুরু করে দিন এই ঘরোয়া পদ্ধতিতে রূপচর্চা। যদি আপনার ত্বক ধুলোবালির কারণে, সূর্যালোকের কারণে বা ধোঁয়ার কারনে রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যায় তাহলে এই ঘরোয়া প্রতিকারটি আপনাকে সুন্দর ত্বক

ফিরে পেতে সাহায্য করবে।মাত্র ৩ টাকা খরচা করে পান সুন্দর ত্বক। যে কোন ওষুধের দোকানে পেয়ে যাবেন ভিটামিন-ই ক্যাপসুল। যার একটির দাম ৩ টাকা। প্রথমে কিছু ভিটামিন-ই ক্যাপসুল কিনুন তারপর সেই ক্যাপসুলে একটি ছিদ্র করে নিন। তারপর ক্যাপসুলের ভিতরের

তরল বের করে নিন। সেই তরলের সঙ্গে বাদাম তেল মেশান আর বাদামের তেল যেকোন মুদি দোকানেই পেয়ে যাবেন । মেশানোর পর সেই মিশ্রণটি রাতে

শোবার আগে পুরো মুখে ম্যাসাজ করুন। অল্প কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করার পর সেটিকে সারা রাত মুখে রাখতে হবে এবং পরের দিন সকালে মুখ পরিস্কার করে ধুয়ে ফেলতে হবে। এইভাবে

বেশ কিছুদিন করার পর আপনি ফল পাবেন হাতে নাতে। ত্বক হবে চোখে পরার মত উজ্জ্বল সঙ্গে পাবেন সাদা রং। এই ক্যাপসুল খেতেও পারেন। প্রতিদিন একটি করে খেলে আপনার ত্বক এবং চুল সুন্দর হবে।

তবে খাওয়ার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া দরকার। কারণ সবার শরীরে এই ওষুধ সহ্য নাও হতে পারে। কারোর কারোর ক্ষেত্রে পার্শপ্রতিক্রিয়া হতে পারে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*